ড. মুহাম্মদ ইউনূস

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। তিনি ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন। তবে তিনি আমাদের দেশের গর্ব হলেও বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষ এই মানুষকে নিয়ে সবকিছু জানে না। এটা যতটা না দুঃখজনক তার চেয়ে বেশি হতাশার। তাই আজ আমরা আমাদের বাংলাদেশের একমাত্র নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ে আলোচনা করবো। চেষ্টা করবো উনার বিষয়ে বিস্তারিত সবকিছু জানানোর।

ড. মুহাম্মদ ইউনূস ১৯৪০ সালের ২৮শে জুন জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী থানার বথুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কিশোর বয়স থেকেই তার প্রতিভার ছাপ রাখতে শুরু করেন। তিনি ১৯৫৫ সালে কানাডার মন্ট্রিয়েলে বিশ্ব জাম্বুরিতে যোগ দিয়েছিলেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সেই তিনি এশিয়া, ইউরোপের বড় বড় দেশে ঘুরতে গিয়েছিলেন। আর আজ সেই দেশগুলো তাকেই চেনে। তার প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ ব্যাংক আজ পুরো পৃথিবীতে সমাদৃত।

ড. মুহাম্মদ ইউনূস তার কাজের মধ্য দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন তেই কিভাবে একজন জামানতবিহীন ঋণ দিয়ে কীভাবে একজন হতদরিদ্র মানুষ তার ভাগ্য বদল করতে পারে। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংকে যারা ঝণ নিয়েছে তাদের পরবর্তী প্রজন্ম আজ সাবলম্বী হয়েছে।

পুরো পৃথিবীতে এই গ্রামীণ ব্যাংকের মডেল নিয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে। এমনকি তার এই উদ্যোগ বড় বড় দেশের পাঠ্যবইতেও এটা এখন যুক্ত হয়েছে। এইতো গতবছর কানাডার পাঠ্যবইতে ড.মুহাম্মদ ইউনুসের কীর্তি ফুটে উঠেছে।

এই গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করার পেছনে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের প্রধান লক্ষ্য ছিলো যারা প্রান্তিক জনগোষ্ঠী রয়েছে তাদের সহজ শর্তে ঝণ প্রদান করা। আর গ্রামের সুজি মহাজনদের থেকে বেরিয়ে এনে তাদের সৃজনশীলতা বিকাশ করা।

মূলত ১৯৭৪ সালে দুর্ভিক্ষ চলাকালীন তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ছিলেন। তখন তিনি নিজ পকেট থেকে টাকা দিয়ে মানুষকে সাহায্য করেন। আর তার এই উদ্যোগ আজকের গ্রামীণ ব্যাংক। ১৯৮৩ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে গ্রামীণ ব্যাংক।

বিশ্বের প্রায় ৪২ টির মতো দেশে গ্রামীণ ব্যাংকের আদলে ব্যাংক রয়েছে। যার মধ্যে ১৬টি দেশে সরাসরি গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মকর্তারা প্রকল্প বাস্তবায়নে সহায়তা করেছে।

আজ বিশ্বের বুকে এই বাংলাদেশ নামটা অনেক সম্মান ও শ্রদ্ধার সাথে উচ্চারণ হয় তাদের মধ্যে ড. মুহাম্মদ ইউনূস অন্যতম।‌ তিনি বিশ্বের যে প্রান্তেই যান তাকে সর্বোচ্চ সম্মান প্রদান করা হয়। তিনি অলিম্পিকে মশাল বহন করার সম্মান পেয়েছিলেন একবার।

About Md Sanuar Mahmud

Nothing special

Check Also

EngineersThought Thumbnail

জনপ্রিয় স্কলার ড. জাকির নায়েক

আমরা যারা ইসলামি বক্তব্য বা ইসলামি বয়ান শুনতে পছন্দ করে থাকি তাদের কাছে একটি পরিচিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *